শিরোনাম
নব নির্বাচিত এমপি আলহাজ্ব হাবীব হাসানের কাছে ঢাকা ১৮ আসনের জনগনের প্রত্যাশা ই-পাসপোর্ট যুগে প্রবেশ ৩টি রকেট আঘাত হানলো বাগদাদের মার্কিন দূতাবাদের কাছে সিপিবি’র সমাবেশে বোমা হামলা মামলায় ১০ আসামির মৃত্যুদণ্ড চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলা: খালেদার জামিন খারিজের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত শাবানা আজমি: ‘কর্মফল’ হিসেবে দেখছেন বিজেপি সমর্থকরা সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নানের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক বিপিএল-এ এবারের চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী কেন্দ্রীয় সরকারের ডাকা জরুরি বৈঠকে যাবে না তৃণমূল কংগ্রেস নতুন কমিশন অনুযায়ী সাপ্তাহিক মজুরি পেতে শুরু করেছে পাটকল শ্রমিকরা

পাকিস্তানে পালিয়ে থেকেও সক্রিয় দাউদ ইব্রাহিম!

উত্তরা টাইমস
সম্পাদনাঃ ৩০ জুলাই ২০১৫ - ০৩:৩১:২২ পিএম

টাইমস বিডি ডটনেট, ডেস্ক, ঢাকাঃ পাকিস্তানের একটি ‘নিরাপদ স্থানে’ লুকিয়ে থেকে খুব স্বাচ্ছন্দ্যে নিয়মিত তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন ভারতের মোস্ট ওয়ান্টেড আন্ডারওয়ার্ল্ড ডন দাউদ ইবরাহিম। মার্কিন বিশেষজ্ঞদের বরাতে আন্ডারওয়ার্ল্ড ডনের এমন সক্রিয়তার খবর নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম সানডে গার্ডিয়ান।

২৬ জুলাই প্রকাশিত হওয়া ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, দাউদ ইব্রাহিম পাকিস্তানে খুব সাধারণ ও জনবসতি এলাকাতেই বসবাস করছে এবং সেখান থেকেই পেশওয়ার, হায়দ্রাবাদ এবং লাহোরে যোগাযোগ রাখছেন। এছাড়াও ভারত ও পাকিস্তানে থাকা পরিবারের সদস্যদের সঙ্গেও নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন তিনি।

আর এক্ষেত্রে শীর্ষ পর্যায়ের রাজনীতিবিদদের সঙ্গে যোগাযোগও রাখছেন তিনি। একটি নির্ভরযোগ্য সূত্রের বরাতে প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০০৬ সালে সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের সময় একজন শীর্ষ পর্যায়ের রাজনীতিবিদের সঙ্গে পাশাপাশি বসেছিলেন দাউদ ইব্রাহিম।

আর ২০০৮ সালে মুম্বাই হামলার সময় অন্তত দুইজন এনডিএ নেতা এবং চারজন শীর্ষ ইউপিএ নেতাদের সঙ্গে তার সরাসরি যোগাযোগ ছিলো। তবে এই শীর্ষ ছয়জনের মধ্য থেকে একজনের সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে তার।

সেই সূত্র আরো দাবি করে যে, দাউদ ইব্রাহিমের সঙ্গে পুলিশ ও প্রশাসনের সহযোগিতা না থাকলে মুম্বাই হামলা সম্ভব হতোনা এবং শীর্ষ পর্যায়ের রাজনীতিবিদরা দাউদকে এমন নিশ্চয়তাও দিয়েছিলো যে হামলার কোনোরকম প্রভাব তার উপর পড়বেনা বরং সবকিছু পাকিস্তানের আজমল কাসাবের ঘাড়ে বর্তাবে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, হোটেল তাজ ও অবরয় এর অন্তত দুজন কর্মচারী হামলাকারীদের তথ্য দেয়। কিন্তু পুলিশ কখনোই তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করেনি। এবং পুলিশ জানায় হোটেলের কোনো কর্মচারী এই হামলার সঙ্গে জড়িত ছিলোনা।
বিশেষজ্ঞরা জানায়, পাকিস্তানী হামলাকারীরা ভারতে যারা সংশ্লিষ্ট ছিলো তাদের সঙ্গে ১৬দিন আগে থেকেই যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়। যার ফলে তাদেরকে শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ।

এছাড়া ২০০৩ সালের মার্চে দাউদ ইব্রাহিমকে এক নতুন পরিচয় দেয়া হয় এবং এই পরিচয়েই সে এখন দক্ষিণ আফ্রিকা মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড, হংকং সহ অন্যান্য দেশে সফর করছে। যুক্তরাষ্ট্র তাকে বিশেষ ধরনের আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী ঘোষণার পরই তার পরিচয় বদলাতে হয়।

কাউন্টর টেরোরিজম বিশেষজ্ঞদের মতে দাউদের নতুন পরিচয়ের ব্যাপারে তার পরিবারও কিছু জানেনা। ২০১১ সালের পর থেকে ফোনে কথা বলাও অনেকটা কমিয়ে দেন এই ডন এবং ২০১২ সাল থেকে ভ্রমণ কমিয়ে ফেলেন।

সূত্র আরো দাবি করে, পুলিশের মহাপরিচালক ও উপ-মহাপরিচালক আগে দাউদের সঙ্গে কাজ করতেন। তবে ২০১৪ সালে নতুন সরকার আসার পর অবস্থার কিছুটা পরিবর্তন ঘটেছে বলেও প্রতিবেদনে জানানো হয়।

এ বিভাগের জনপ্রিয় খবর

সর্বশেষ
জনপ্রিয় খবর

Uttara Times

Like us on Facebook!
Sign up for our Newsletter

Enter your email and stay on top of things,

Subscribe!