শিরোনাম
নব নির্বাচিত এমপি আলহাজ্ব হাবীব হাসানের কাছে ঢাকা ১৮ আসনের জনগনের প্রত্যাশা ই-পাসপোর্ট যুগে প্রবেশ ৩টি রকেট আঘাত হানলো বাগদাদের মার্কিন দূতাবাদের কাছে সিপিবি’র সমাবেশে বোমা হামলা মামলায় ১০ আসামির মৃত্যুদণ্ড চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলা: খালেদার জামিন খারিজের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত শাবানা আজমি: ‘কর্মফল’ হিসেবে দেখছেন বিজেপি সমর্থকরা সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নানের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক বিপিএল-এ এবারের চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী কেন্দ্রীয় সরকারের ডাকা জরুরি বৈঠকে যাবে না তৃণমূল কংগ্রেস নতুন কমিশন অনুযায়ী সাপ্তাহিক মজুরি পেতে শুরু করেছে পাটকল শ্রমিকরা

ইদানিং ছাত্রীদের ভিডিও গুলো দারুন হয় …দেখুন তাহলে……(ভিডিও সহ)

উত্তরা টাইমস
সম্পাদনাঃ ১৪ আগস্ট ২০১৫ - ১২:৪৩:৩৭ পিএম

টাইমস বিডি ডটনেট, ঢাকা: তরুণ মন্ডলের বয়স ৪৮ ৷ পেশায় ব্যাঙ্কের কেরানি হলেও চাকরির প্রতি তার নেশা নেই ৷ নামে চাকরি টিকিয়ে রেখেছেন বাঁধা ইনকামের আশায় ৷ বিপত্নীক হয়েছেন বছর ৮ হলো ৷ দুর্ঘটনায় জবা মারা যাবার পর তরুনের জীবন তাই যেন বদলে গেছে ৷ সুন্দর ভদ্র জীবন কেমন করে ওলট পালট হয়েছে তা জানা নেই তরুনের ৷ কিসের খিদে তাকে যেন তাড়িয়ে নিয়ে বেড়ায় ৷ পৈত্রিক ভিটে মাটি ছাড়া জমি আছে দো ফসলা ৩০-৪০ বিঘে ৷ আর ৮-৯ বিঘে বাস্তু পুকুর মিলে তার খাবারের অভাব নেই ৷ ছেলেপুলে নেই বলেই তরুনের মন্ডলের জীবনে এমন পরিবর্তন এসেছে বলেও সে নিজে মনে করে না ৷ তার দুটি নেশা একটা যাত্রা পালার , আর দ্বিতীয় মাছ ধরার ৷ তাকে মাসে দুই বার শহরে যেতে হয় ৷ তারই অফিসের কাজে ৷ তারই ফাকে টুকি টাকি নানা জিনিস কিনে আনে শহরের বড় বাজার থেকে ৷ মাছের খাবার , টোপ, বর্শি , ল্যলনের কর্ড, আরো কত কি ৷ গ্রামের বাচ্চা মেয়েরা প্রায় ই তাকে টুকি টাকি আনতে বলে ৷ কখনো নেল পালিস , কখনো হার , বা কানের দুল, কাঁচের চুরি ৷ এদের কাছ থেকে তরুণ কখনো বা পয়সা নেয় কখনো বা নেয় না ৷ সেদিন গরম দুপুরে ভিড় বাসে উঠতেই হলো তরুণকে ৷ তরুণ এর জীবন বদলে যাবার জন্য এই ঘটনাটা যে অনেকাংশে দায়ী তা বলা বাহুল্য ৷

এমনিতেই নিতান্ত ভদ্র ধুতি আর খদ্দরের কড়কড়ে ইস্ত্রী করা পাঞ্জাবি পরে বাসে উঠেছেন তিনি ৷ অভাব নেই তাই পোশাক আশাক বেশ ভদ্রোচিত ৷ গোল বাধলো কলেজের কিছু মেয়েদের নিয়ে ৷ তার শরীরের খিদে শেষ হয়ে যায় নি ৷ কিন্তু তবুও বাসে ট্রামে নোংরামি করার মত মানসিকতা তার ছিল না ৷ ৫-৬ জন মেয়েদের একটা দল তার সামনে এসে দাঁড়িয়ে পড়ল ৷ একে বাসে পা রাখার জায়গা নেই তার উপর উঠতি মেয়েদের শরীর তরুনের গায়ে এসে পড়ায় এক দিকে যেমন তিনি হতচকিত অন্য দিকে খুশিও বটে ৷ গত ৮ বছরে কোনো মেয়েকে ছোবার সৌভাগ্য হয় নি তার ৷ আর পতিতা গামী হবার বিন্দুমাত্র লালসাও তার নেই ৷ মাঝ্লা শরীরের মেয়েটি যেন তরুনের শরীরে ভিড়ে যেন মিশে যাচ্ছিল সামনে থেকে ৷ তরুণ মনে মনে না চাইলেও শরীরের গরমে তার পুরুষাঙ্গ তার সমান গরম দেখিয়ে অস্তিত্বের প্রকাশ ঘটিয়ে ফেলল ৷ মেয়েটি দু একবার আর চোখে দেখে মেপে নিল ভদ্রলোক গোছের তরুণ কে ৷ তরুণ অপ্রস্তুত হয়ে পড়লেও সামলে নিয়ে নিজেকে মেয়েটির থেকে দুরে থাকলেন ৷ হয়ত বিধির বিধান এমনি ছিল তরুনের কপালে ৷ মেয়েটি তরুনের চামড়ার সাথে সেটে বসলো ৷ বাসে ভিড়ের মাত্র যাই থাকুক না কেন এটা মেয়েটির ইচ্ছাকৃত না অনিচ্ছাকৃত ভুলতা আর জানা সম্ভব হয় নি ৷ গন্তব্য স্থল কাছেই ছিল তরুণ বাবুর ৷ পরের স্টপেজেই নামতে হত ৷ কিন্তু সুন্দরী কুমারী ১৮বছরের নরম দেখে নিজের দেহ মাখিয়ে রাখলেও নামতে মন মানছিল না ৷ কলেজে পরা মেয়েটি আচমকাই চোখ বেকিয়ে তরুণ বাবুর উদ্দেশ্যে বলে উঠলো ” ছি ছি বাসের মধ্যে নোংরামি করছেন আপনার লজ্জা করলো না আমি আপনার মেয়ের বয়েসী ৷” বাসে হই হই পরে গেল ৷ তখন কে তরুণ বাবু আর কে মোহিত বাবু কেউ জানে না ,দু ছাড়তে অদৃশ্য হাথ উড়ে উড়ে চার চাপাটি ফেলতে সুরু করে দিল ৷ ভিড়ের পাজর থেকে টেনে হিচড়ে নেমে আসতে গিয়ে দু চারটে চড় তাকে এড়িয়ে গেল না ৷ ইস্ত্রী করা পাঞ্জাবির পকেটটা একটু ছিড়ে গেছে ৷ বাস স্টপে কোনো ক্রমে নেমে দেখলেন আসে পাশের উত্সুক লোক তাকেও দেখছে ৷ কোনো ক্রমে sei জায়গা দিয়ে বেরিয়ে হেড অফিসে পৌছে এক গ্লাস ঠান্ডা জল খেয়ে তৃপ্তি হলেও ঠোটের কোন টা চির চির করে জ্বলছিল ৷ ফ্রেশ রুম এ রাখা আইনে মুখ দেখতে চমকে উঠলেন তিনি ৷ ঠোটের কোন টা কেউ যেন মেরে ফুলিয়ে দিয়েছে ৷ অভিমান আর আত্ম গ্লানি বুকে নিয়ে কাজ সারলেন যাবতীয় ৷ শরীরের রক্ত যেন টগ বগ করে ফুটছিল ৷
কাজ সেরে অফিস থেকে বেরিয়েই টুকি টাকি কেনা কাটা করে রওনা দিলেন বাড়ির দিকে ৷ ট্রেন পথে ১ ঘন্টা লাগে গ্রামে পৌছাতে ৷ বিজয় নগর শহরে তার এক প্রানের বন্ধু থাকে ৷ মন খারাপ বলে ভাবলেন বিকেল টা বন্ধুর সাথে যদি কাটানো যায় ৷ নরেন বছর ১৫ এই শহরে এসেছে ৷ তার ব্যবসা কাঠের ৷ বেশ ধনী না হলেও খেয়ে পড়ে চলে যায় তার ৷ ছোট গুদোম ঘরের সামনে দাঁড়িয়ে হক পারলেন ” নরেন আছিস নাকি রে ?” বছর ৫০ এর এক প্রৌর গামছা গায়ে বেরিয়ে আসে ৷ ” তরুণ নাকি রে আয় আয় , টা এতদিন পর আসলি , আমি ভাবলাম ভুলেই গেছিস , তুই তো আজকাল আর আসিস না !” দুজনে গল্প করতে করতে গুদোম ঘর পেরিয়ে ছোট বাড়ির উঠানে এসে বসে ৷ মালা তার স্ত্রী ৷ “মালা একটু চা কর দেখি তরুণ এসেছে আমাদের গা থেকে !” তরুণ বাবু কে দেখে এক গাল হেঁসে মালা ভিতরে চলে গেলেন ৷ বললেন ” ঠাকুরপো বড়লোক আমাদের বাড়ি আসবে কেন ? দিদি গত হয়েছেন ৮ বছর হলো তাবলে কি আমরা তার আত্মীয় নই ?”

সর্বশেষ
জনপ্রিয় খবর

Uttara Times

Like us on Facebook!
Sign up for our Newsletter

Enter your email and stay on top of things,

Subscribe!