শিরোনাম
নব নির্বাচিত এমপি আলহাজ্ব হাবীব হাসানের কাছে ঢাকা ১৮ আসনের জনগনের প্রত্যাশা ই-পাসপোর্ট যুগে প্রবেশ ৩টি রকেট আঘাত হানলো বাগদাদের মার্কিন দূতাবাদের কাছে সিপিবি’র সমাবেশে বোমা হামলা মামলায় ১০ আসামির মৃত্যুদণ্ড চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলা: খালেদার জামিন খারিজের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত শাবানা আজমি: ‘কর্মফল’ হিসেবে দেখছেন বিজেপি সমর্থকরা সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নানের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক বিপিএল-এ এবারের চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী কেন্দ্রীয় সরকারের ডাকা জরুরি বৈঠকে যাবে না তৃণমূল কংগ্রেস নতুন কমিশন অনুযায়ী সাপ্তাহিক মজুরি পেতে শুরু করেছে পাটকল শ্রমিকরা

পুলিশ নিয়ে প্রতিবেদন, সাংবাদিককে তলব

উত্তরা টাইমস
সম্পাদনাঃ ২০ আগস্ট ২০১৫ - ০৬:৩৯:০৩ এএম

ডেস্ক প্রতিবেদনঃ বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকায় প্রকাশিত পুলিশ নিয়ে একটি সংবাদের বিষয়ে ‘অনুসন্ধানের স্বার্থে’ সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদককে তলব করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)। পত্রিকাটির সম্পাদক বরাবর চিঠি পাঠিয়ে আগামী ২০ আগস্ট ওই প্রতিবেদককে ডিএমপির সহকারী পুলিশ কমিশনার মো. বদরুল হাসানের কার্যালয়ে উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে।

বদরুল হাসানের সই করা ওই চিঠিতে বলা হয়, “গত ১১.০৮.২০১৫ তারিখে দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন প্রত্রিকায় প্রকাশিত ‘বাড়াবাড়িতে অর্জন ম্লান, পুলিশ সদস্যরা বেপরোয়া, সম্মানিত নাগরিকদের সঙ্গেও খারাপ আচরণ’ শীর্ষক প্রতিবেদনের আলোকে বিষয়টি অনুসন্ধানের স্বার্থে বর্ণিত পত্রিকার শাহবাগ ও ধানমণ্ডি এলাকায় নিয়োজিত প্রতিবেদককে জিজ্ঞাসাবাদ করা একান্ত প্রয়োজন। তাই তাঁকে আগামী ২০.০৮.২০১৫ তারিখ বিকাল ১৬.০০ ঘটিকার সময় প্রকাশিত সংবাদের প্রেক্ষিতে তথ্যাদিসহ নিম্ন স্বাক্ষরকারীর অফিসে হাজির করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ করা হলো।”

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকার সম্পাদক নঈম নিজাম বলেন, ‘পুলিশ এবার যেটা করেছে সেটা তাদের এখতিয়ার বহির্ভূত। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ এভাবে কাউকে ডাকতে পারে না। কোনো সাংবাদিককে তো নয়ই।’

জ্যেষ্ঠ এ সাংবাদিক বলেন, ‘তদন্তের প্রয়োজনে তারা আমাদের কার্যালয়ে ফোন করে কথা বলতে পারত। তবে চিঠি পাঠিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকাটা তাদের এখতিয়ার ও আইন বহির্ভূত বাড়াবাড়ি কাজ বলে আমি মনে করি। তাদের কাছে আমি আমার কোনো রিপোর্টারকে পাঠাব না। তারা তদন্ত করতে পারে। সেক্ষেত্রে আমরা পরিপূর্ণ সহায়তা করব। কিন্তু কোনো মিডিয়াকে তো তারা নোটিশ করতে পারে না। এটা গণমাধ্যমের জন্য হেলদি না। এটা শালীনতার মধ্যে পড়ে না। এটা পুরোপুরি ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ।’

এর আগেও এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটেছিল কি-না জানতে চাইলে নঈম নিজাম বলেন, একবার পুরো বাংলাদেশের খেলাধূলার বিষয় নিয়ে একটি প্রতিবেদন ছাপা হয়েছিল। তার পরিপ্রেক্ষিতে তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করেন নড়াইল থানার ওসি। সেখানে তাঁর নামে অভিযোগপত্র জমা দেওয়া হয়। সেই মামলা এখনো চলছে বলেও জানান নঈম নিজাম।

পুলিশের এ চিঠি প্রসঙ্গে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী শেখ আখতার উল ইসলাম বলেন, ‘পুলিশের হাতে শক্তিশালী ৫৪ ধারা আছে। এই ধারা অনুযায়ী তারা যে কাউকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকতে পারে। প্রয়োজনে অ্যারেস্ট করতে পারে। যেকোনো অপরাধে কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারে। এই ধারায় পুলিশকে এমনই অসীম ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। সেই ক্ষমতা অনুযায়ী অপরাধ সংঘটনের কোনো ধরনের আলামত পেলে পুলিশ যে কাউকে গ্রেপ্তার বা জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারে।’

একটি প্রতিবেদনের কারণে কোনো সংবাদকর্মীকে এভাবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকা যায় কি-না তা জানতে যোগাযোগ করা হয় ডিএমপির সহকারী পুলিশ কমিশনার মো. বদরুল হাসানের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘এটা জাস্ট একটা এনকোয়ারি (অনুসন্ধান)। জিজ্ঞাসাবাদ শব্দটাকে আপনারা কীভাবে নিচ্ছেন জানি না। জাস্ট কথা বলার জন্য ডাকা হয়েছে। এটাকে অন্যভাবে নেওয়ার কিছু নেই। আমরা আমাদের সদস্যদের সম্পর্কে এনকোয়ারি করছি। সে বিষয়ে তথ্য নিতেই তাদের সঙ্গে কথা বলার জন্য তাদের ডেকেছি।’

যদি চিঠি পাওয়ার পর প্রতিবেদকরা পুলিশের কার্যালয়ে না আসেন তাহলে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে কি-না তা জানতে চাইলে সহকারী পুলিশ কমিশনার বলেন, ‘এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলাপ করে তারপর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

এ বিভাগের জনপ্রিয় খবর

সর্বশেষ
জনপ্রিয় খবর

Uttara Times

Like us on Facebook!
Sign up for our Newsletter

Enter your email and stay on top of things,

Subscribe!