শিরোনাম
নব নির্বাচিত এমপি আলহাজ্ব হাবীব হাসানের কাছে ঢাকা ১৮ আসনের জনগনের প্রত্যাশা ই-পাসপোর্ট যুগে প্রবেশ ৩টি রকেট আঘাত হানলো বাগদাদের মার্কিন দূতাবাদের কাছে সিপিবি’র সমাবেশে বোমা হামলা মামলায় ১০ আসামির মৃত্যুদণ্ড চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলা: খালেদার জামিন খারিজের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত শাবানা আজমি: ‘কর্মফল’ হিসেবে দেখছেন বিজেপি সমর্থকরা সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নানের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক বিপিএল-এ এবারের চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী কেন্দ্রীয় সরকারের ডাকা জরুরি বৈঠকে যাবে না তৃণমূল কংগ্রেস নতুন কমিশন অনুযায়ী সাপ্তাহিক মজুরি পেতে শুরু করেছে পাটকল শ্রমিকরা

মতিয়া চৌধুরীর প্রতি কেন ‘কৃতজ্ঞ’ ‘প্রথম আলো’র সম্পাদক

উত্তরা টাইমস
সম্পাদনাঃ ০৪ আগস্ট ২০১৫ - ০৩:০৯:০৪ পিএম

টাইমস বিডি ডটনেট, ডেস্ক, ঢাকাঃ ‘প্রথম আলো’তে প্রকাশিত এক মন্তব্য প্রতিবেদনে ‘অগ্নিকন্যা’ খ্যাত রাজনীতিক বাংলাদেশের কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীকে ‘ধন্যবাদ’ ও ‘কৃতজ্ঞতা’ জানিয়েছেন দেশের শীর্ষস্থানীয় ওই পত্রিকার সম্পাদক মতিউর রহমান।

‘ধন্যবাদ’ আর ‘কৃতজ্ঞতা’র কারণ হিসেবে মতিউর রহমান তার লেখায় উল্লেখ করেছেন প্রথম আলোর বিরুদ্ধে হওয়া ৮টি মামলার প্রসঙ্গ।

প্রথম আলো সম্পাদকের দাবি, ‘জাতীয় সংসদে দেওয়া তাঁর [মতিয়া চৌধুরী] বিবৃতিতে উৎসাহিত হয়ে তাঁর দলের অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা গত মাসে ঝিনাইদহ আদালতে প্রথম আলোর ঝিনাইদহ প্রতিনিধি, একজন স্থানীয় সাংবাদিক ও ‘প্রথম আলো’র সম্পাদকের বিরুদ্ধে আটটি মানহানির মামলা দায়ের করেছেন।’ একই বিষয়ে আরও দুটি চাঁদাবাজির মামলা হয়েছে ‘প্রথম আলো’র ঝিনাইদহ প্রতিনিধির বিরুদ্ধে।

আর মামলার হাজিরা দিতে গিয়ে মতিউর রহমান ঝিনাইদহ শহরকে ঘনিষ্ঠভাবে জানতে পারবেন বলেই মতিউর রহমান কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রীকে। লিখেছেন, ‘এখন আমাকে প্রায়ই যেতে হবে ঝিনাইদহ শহরে। সেটা একদিক থেকে ভালো হলো আমার জন্য। একটি জেলা শহরকে আমার ঘনিষ্ঠভাবে জানা-বোঝার সুযোগ ঘটবে। স্থানীয় অনেক মানুষের সঙ্গে পরিচয়ও হবে। তাদের কাছ থেকে অনেক কিছুই জানতে পারব, শিখতে পারব। তাই মতিয়া আপাকে ধন্যবাদ জানাই।’

প্রসঙ্গত, মতিউর রহমান আর বর্তমান কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী এক সময়ের রাজনৈতিক সহযোদ্ধা। মন্তব্য প্রতিবেদনে ষাটের দশকের সেই প্রগতিশীল রাজনীতিতে পারস্পারিক সম্পর্কের স্মৃতিচারণও করেন মতিউর রহমান। তবে প্রশ্ন রাখেন, জাতীয় সংসদে ‘প্রথম আলো’র বিরুদ্ধে মতিয়া চৌধুরীর দেয়া বক্তব্য নিয়ে। তিনি লিখেছেন, ‘আমাদের মতিয়া আপা মহান জাতীয় সংসদে ‘জনস্বার্থে’ ব্যক্তিগত কৈফিয়ত দিতে তিনবার দাঁড়িয়ে বক্তৃতা দিয়েছেন। এর জন্য তিনি মোট ২২ মিনিট ৩৩ সেকেন্ড সময় ব্যয় করেছেন। টিআইবির (২০১১-২০১২ সালের) হিসাব অনুযায়ী, এই ২২ মিনিট ৩৩ সেকেন্ড কথা বলার পেছনে সংসদের ব্যয় হয়েছে মোট ১৭ লাখ ৫৫ হাজার টাকা (প্রতি মিনিটে ব্যয় ৭৮ হাজার টাকা)। এখন নিশ্চয়ই এই ব্যয় আরও বেড়েছে।’ প্রথম আলোর সম্পাদক মন্তব্য করেছেন, এতে জনগণের অর্থের অপব্যয় করা হয়েছে।

মতিউর রহমান লিখেছেন, ‘প্রথম আলো’র বিরুদ্ধে অপপ্রচার বা মামলা-মোকদ্দমা নিয়ে তেমন কিছু বলার নেই তাদের। তবে তিনি প্রশ্ন রেখেছেন, ঝিনাইদহ জেলার কোটচাঁদপুরের স্থানীয় কৃষি বিভাগের অনিয়ম ও অন্যায় সরকারের এত বড় প্রভাবশালী নেতা ও মন্ত্রী কেন নিজের কাঁধে টেনে নিলেন? তিনি প্রশ্ন রেখেছেন, ‘বর্তমান সরকারের আমলে সারা দেশ, সব জেলা আর উপজেলা-ইউনিয়ন থেকে অন্যায়-অবিচার-দুর্নীতি সব দূর হয়ে গেছে? সব পর্যায়ের সব সরকারি কর্মকর্তা আর কর্মচারী কি সাদা ধবধবে সাফসুতরো হয়ে গেছেন? নাকি সর্বত্রই এসব আছে? শুধু নেই মতিয়া আপার কৃষি মন্ত্রণালয়ে?’

মন্তব্য প্রতিবেদনে প্রথম আলোর বিরুদ্ধে নানা সময়ে রাষ্ট্রযন্ত্রের বিভিন্ন ‘হয়রানিমূলক’ কর্মকাণ্ডেরও বিবরণ দিয়েছেন মতিউর রহমান। উল্লেখ করেছেন, এর সংবাদকর্মীদের উপর নানা সময়ের নির্যাতনের প্রসঙ্গ। তিনি লিখেছেন, এত সব কিছুর পরও ঝিনাইদহ আদালতের আদেশ মান্য করে নাগরিক হিসেবে ‘প্রথম আলো’র সংশ্লিষ্টরা সব আইনি লড়াই চালিয়ে যাবেন।

তবে উদ্বেগের সঙ্গে মতিউর রহমান উল্লেখ করেছেন, ‘যত দূর খবর পাচ্ছি, স্থানীয় সরকারি কর্মকর্তারা আমাদের বিরুদ্ধে হওয়া মামলাগুলো নিয়ে ব্যস্ত আছেন। আটটি মামলার দুটির তদন্তভার দেওয়া হয়েছে স্থানীয় সরকারি মৎস্য কর্মকর্তার ওপর। সর্বশেষ মামলাটির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে স্থানীয় কৃষি কর্মকর্তাকে। অথচ কলের লাঙল কেনা নিয়ে ঘটা অনিয়মের প্রক্রিয়ার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ আছে এই কর্মকর্তার বিরুদ্ধেই।’

সবশেষে মতিউর রহমানের মন্তব্য, ‘যত বাধাই আসুক না কেন, আমরা এসব মেনে নিয়েই স্বাধীন সাংবাদিকতা সমুন্নত রাখতে সচেষ্ট আছি এবং ভবিষ্যতেও থাকব।’

প্রসঙ্গত ঝিনাইদহ জেলার কোটচাঁদপুরের স্থানীয় কৃষি বিভাগে অনিয়ম ও অন্যায় হচ্ছে মর্মে, কলের লাঙলের ভর্তুকির বড় ভাগ সরকারি দলের নেতা-কর্মীদের পকেটে শিরোনামে এবং পরবর্তীতে ‘প্রথম আলো’র খবর অসত্য নয়, এখনো পাঁচজন লাঙল কেনেননি শিরোনামের দুইটি প্রতিবেদনসহ বেশ কিছু প্রতিবেদন প্রকাশ করে ‘প্রথম আলো’। এদিকে প্রতিবেদনের সত্যতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে প্রতিবেদনের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের নিয়ে করা হয়েছে ১০টি মানহানির মামলা।

পাঠক, এই মন্তব্য প্রতিবেদনের বিপরীতে কৃষি মন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীর প্রতিক্রিয়া পাওয়া গেলে তাও পাঠকের সামনে তুলে ধরা হবে।

এ বিভাগের জনপ্রিয় খবর

সর্বশেষ
জনপ্রিয় খবর

Uttara Times

Like us on Facebook!
Sign up for our Newsletter

Enter your email and stay on top of things,

Subscribe!