শিরোনাম
নব নির্বাচিত এমপি আলহাজ্ব হাবীব হাসানের কাছে ঢাকা ১৮ আসনের জনগনের প্রত্যাশা ই-পাসপোর্ট যুগে প্রবেশ ৩টি রকেট আঘাত হানলো বাগদাদের মার্কিন দূতাবাদের কাছে সিপিবি’র সমাবেশে বোমা হামলা মামলায় ১০ আসামির মৃত্যুদণ্ড চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলা: খালেদার জামিন খারিজের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত শাবানা আজমি: ‘কর্মফল’ হিসেবে দেখছেন বিজেপি সমর্থকরা সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নানের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক বিপিএল-এ এবারের চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী কেন্দ্রীয় সরকারের ডাকা জরুরি বৈঠকে যাবে না তৃণমূল কংগ্রেস নতুন কমিশন অনুযায়ী সাপ্তাহিক মজুরি পেতে শুরু করেছে পাটকল শ্রমিকরা

শেষ হচ্ছে বিকিনির দিন!

উত্তরা টাইমস
সম্পাদনাঃ ০৬ আগস্ট ২০১৫ - ০৫:০০:০৩ পিএম

সংক্ষিপ্ত বিকিনি হয়ত একঘেয়ে হয়ে পড়েছিল, তাই আন্তর্জাতিক ফ্যাশনে হালের সুইমওয়্যার শোগুলোতে হঠাৎ অনদূর অতীতের সেই অনুগ্র ওয়ান পিস সুইমসুট উঁকিঝুঁকি মারতে শুরু করেছে। ফ্যাশন বোদ্ধাদের মতে, নিকট ভবিষ্যতেই ট্রেন্ড দুনিয়ায় জনপ্রিয় হয়ে উঠবে এই ওয়ান পিস সুইমসুট। তাই তাদের পরাশর্ম- ইটস টাইম টু সে বাই বাই বিকিনি।

সুইমসুটের আসল মজা তার কাপড়ে। ফ্যাশন ডিজাইনাররা চান নরম কাপড়, যা বাতাসে বা রোদ্দুরে খুব তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যাবে। ২০১৫ সালের এই সুইমিং মৌসুমে রঙচঙে ওয়ান পিস সুইমসুট বিকিনিদের অনেক পিছনে ফেলে দিয়েছে৷

গোসল ও সাঁতার কাটার জন্য অষ্টাদশ শতাব্দীতে নারীদের জন্য তৈরি হয় সুইমসুট। সেই সঙ্গে পুরুষদের জন্যও সর্বাঙ্গ ঢেকে জলে নামার পরিধেয়। মোটা পশম কিংবা তুলোর এই সব কাপড় পানি শুষে নিতো, যার ফলে তা শুকোতে অনেক সময় লাগত। তৎকালীন সময়ে নারী পুরুষ একসঙ্গে পানিতে নামা ছিল নিষিদ্ধ। স্নান করতে হতো আলাদা জায়গায়।

বিংশ শতাব্দীর সূচনায় ছুটিছাটায় সমুদ্রতীরে গিয়ে গোসল ও সূর্যস্নানের প্রথা শুরু হয়। ততদিনে সুইমসুট আর একটু বেশি ‘টাইট’ হয়েছে, কাপড়ের সঙ্গে জুটেছে ইলাস্টিক। হ্যাটের মতো দেখতে ‘বেদিং ক্যাপ’ বা গোসলের টুপির আসল কাজ ছিল মাথায় যাতে বেশি রোদ না লাগে। পুরো শরীর ঢাকার এ ধরনের সুইমসুট নারী পুরুষ সকলের জন্যেই তৈরি হতো।

সুইমওয়্যার অবশেষে আধুনিক হয় বিশের দশকে। ছোটো বেল্ট, সোনালি বোতাম, চুমকি ইত্যাদি লাগানো সুইমসুটকে নারীদের কাছে আকর্ষণীয় করে তোলা হয়। তবে সেই আমলে শুধুমাত্র ছোট সাইজের সুইমসুট পাওয়া যেত।

সুইমসুটের ইতিহাসের অনন্য নাম এস্থার উইলিয়াম্স, একজন অলিম্পিক সাঁতারু। একটি ‘ওয়াটার শো’তে অংশগ্রহণ করে তিনি হলিউড এজেন্টদের নজরে পড়েন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কারণে ১৯৪০ সালের অলিম্পিক বাতিল করা হয়, কিন্তু এস্থারের রোজগারপাতির অভাব হয়নি। কেননা তিনি তখন চিত্রতারকা। ‘নেপচুন্স ডটার’ ছবিতে তিনি ছিলেন বেদিং বিউটি। পরে হলিউডের সবচেয়ে ধনী অভিনেত্রীদের মধ্যে একজন হয়েছিলেন তিনি।

সুইমসুট পরিহিতা মেরিলিন মনরোকে ভোলার কোন উপায় নেই। সুইমসুটের জনপ্রিয়তায় তার অবদান কম নয়। চল্লিশের দশকে তিনি মডেল হিসেবেই কাজ করেছেন, অভিনেত্রী হিসেবে নাম করেন তার অনেক পরে। প্রখ্যাত পিরেলি বর্ষপঞ্জীতে ক্যালেন্ডার গার্ল হিসেবে পোজ দিয়েছেন ওয়ান পিস সুইমসুট পরে- বাকিটা ইতিহাস।

সুন্দরী প্রতিযোগীতায় বিকিনি রাউন্ড নেই, বর্তমানে এমন কথা ভাবাই যায় না। তবে পঞ্চাশের দশকে জার্মানির সেরা সুন্দরী নির্বাচন করা হতো বিকিনি ছাড়াই। তবে হাইহিল জুতা থেকে আঁটসাঁট সুইমসুট- বাদ থাকতো না বিচারকার্যে।

রূপালী পর্দায় সুইমসুট বিখ্যাত হয়ে ওঠে পঞ্চাশ দশকের শেষের দিকে। আর ষাটের দশকে সুইমসুট হয়ে ওঠে ‘সেক্সসিম্বল’ প্রতীকে অত্যাবশ্যকীয়, নায়িকাকে একবার না একবার সুইমসুটে দেখা দিতেই হবে। সেই সঙ্গে রবারের তৈরি বেদিং ক্যাপ, যাতে চুল না ভেজে।

সুইমওয়্যারের ইতিহাসে ‘বে-ওয়াচ’ সৃষ্টি করেছে ইতিহাস। এই সিরিজের অভিনেত্রীরা অত্যন্ত হাই-কাট সুইমসুট পরে নব্বই দশক মাতিয়েছেন। সারা বিশ্বে শুরু হয় এই সুইমসুটের অনুকরণ। সুইমসুটে প্যামেলা অ্যান্ডারসন হয়ে ওঠেন কোটি ভক্তহৃদয়ে ‘যৌনদেবী’, কারণ ১৪৪টি দেশে প্রচার হয়েছে ‘বে-ওয়াচ’।

সুইমসুট ডিজাইন করার সময় ফ্যাশন ডিজাইনারদের সবার আগে ভাবতে হয়, কতটা রাখব আর কতটা ফেলব। বিকিনির চেয়ে সুইমসুটে বেশি লজ্জা ঢাকার কথা, কিন্তু হালফ্যাশনে সে সীমা সব সময় বজায় থাকে না। কাট, ইন্টারকাট, ডিজাইন এবং ব্যবহার বিকিনিকে হার মানায় আবেদন, আকর্ষণ ও বহিঃপ্রকাশে।

এ বিভাগের জনপ্রিয় খবর

সর্বশেষ
জনপ্রিয় খবর

Uttara Times

Like us on Facebook!
Sign up for our Newsletter

Enter your email and stay on top of things,

Subscribe!