শিরোনাম
নব নির্বাচিত এমপি আলহাজ্ব হাবীব হাসানের কাছে ঢাকা ১৮ আসনের জনগনের প্রত্যাশা ই-পাসপোর্ট যুগে প্রবেশ ৩টি রকেট আঘাত হানলো বাগদাদের মার্কিন দূতাবাদের কাছে সিপিবি’র সমাবেশে বোমা হামলা মামলায় ১০ আসামির মৃত্যুদণ্ড চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলা: খালেদার জামিন খারিজের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত শাবানা আজমি: ‘কর্মফল’ হিসেবে দেখছেন বিজেপি সমর্থকরা সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নানের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক বিপিএল-এ এবারের চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী কেন্দ্রীয় সরকারের ডাকা জরুরি বৈঠকে যাবে না তৃণমূল কংগ্রেস নতুন কমিশন অনুযায়ী সাপ্তাহিক মজুরি পেতে শুরু করেছে পাটকল শ্রমিকরা

ভারতে আঞ্চলিক ছবির দাপট এবং ইতিহাস সৃষ্টিকারী ‘বাহুবলী’

উত্তরা টাইমস
সম্পাদনাঃ ১৪ জুলাই ২০১৫ - ০৩:৩৬:১০ পিএম

টাইমস বিডি ডটনেট, ডেস্ক: বলিউডের সিনেমায় সত্যিকার অর্থেই সুসময় চলছে এখন। প্রতি মাসেই অসংখ্য বিগ বাজেটের ছবি সেখানে নির্মাণ হচ্ছে। সবকিছুর সাথে পাল্লা দিয়ে কাহিনী, নির্মাণশৈলীতেও এসেছে বিশাল পরিবর্তন। পিছিয়ে নেই ভারতীয় আঞ্চলিক ছবিগুলোও। এই যেমন বর্তমানে ভারতের সবচেয়ে আলোচিত ছবি ‘বাহুবলী’; যা ভারতের একটি আঞ্চলিক ছবি। তামিল-তেলেগু ভাষায় নির্মিত এই ছবিটি ইতিমধ্যে উপমহাদেশেতো বটেই, আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিনত হয়েছে পুরো বিশ্বের সিনেমা জগতে।

তামিল নির্মাতা এসএস রাজামউলের নির্মিত ‘বাহুবলী’কে তুলনা করা হচ্ছে হলিউডের বিখ্যাত ছবি ‘৩০০’এর সাথে। সমালোচকরা বলছেন, কস্টিউম এবং অ্যাকশনে প্রায় অনেকটা অনুকরণ করা হয়েছে ‘বাহুবলী’তে। ছবির শুরুটাকে অনেকেই আবার ‘লর্ড অব দ্য রিং’ এর সাথে তুলনা করেছেন। অনেকেই আবার তেলেগু ছবি ‘মাগাদিরা’র আবহের সাথেও তুলনা করছেন।
তবে যাইহোক, বাহুবলী যে ভারতীয় সিনেমায় এক ব্যতিক্রমী নির্মাণ, তার স্বাক্ষর খুব ভালোভাবেই রেখেছেন রাজামউলে।

একটা আঞ্চলিক ছবি পুরো ভারতকে নাড়িয়ে দিবে, এটা কি কেউ বিশ্বাস করেছিল? ভারতের মেইনস্ট্রিম চলচ্চিত্র ধরা হয় শুধু বলিউডে নির্মাণ হওয়া ছবিগুলোকেই, অথচ আঞ্চলিক ছবিগুলোও যে বলিডের থেকে আরো বেশী আবেদন তৈরি করতে পারে দর্শকদের মাঝে, আলোড়ন তুলতে পারে, সিনেমা ইন্ডাস্ট্রিকে নাড়িয়ে দিতে পারে তারও প্রকৃষ্ট উদাহারণ সৃষ্টি করল তেলেগু ‘বাহুবলী’।

ভারতের দক্ষিণী ছবিগুলোর নিজস্বতা, মৌলিকতা থাকা সত্বেও সাধারণত এগুলো বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে খুব একটা মূল্যায়ন পায় না। বরং দক্ষিণী ছবিগুলো নকল করে হুবুহু বলিউড ছবি নির্মাণ করে। দক্ষিণী এমন অসংখ্য ছবি আছে, যেগুলোর জনপ্রিয়তা কাজে লাগিয়ে বলিউডের মূলধারায় চলচ্চিত্র নির্মাণ করা হয়েছে। এই প্রথম একটি আঞ্চলিক ছবি হয়েও প্রথমবারের মতো ব্যতিক্রমও ঘটালো তেলেগু ছবি ‘বাহুবলী’। এর অন্যতম কারণ, বলিউডে বলিউডে ছবিটি আমদানিতে আছেন একজন ঝানু ব্যক্তিত্ব করন যোহর। বলিউডে আমদানিকারদের একজন যদি করন যোহর না হতো, তাহলে হয়তো ছবিটির বর্তমান সময়ের মত ‘বাহুবলী’ এতোটা ঝাঁকুনি দিতে ব্যর্থ হত।

তবে যাই হোক, ভারতীয় ইতিহাসে এযাৎ কালের সবচেয়ে আলোচিত ছবির নাম এখন ‘বাহুবলী’। নানা কারণেই ভারতীয় মিডিয়ায় ব্যাপক তোলপাড় তৈরি করেছে ছবিটি। প্রচারণায়ও ছিল ভিন্নতা। ছবিটির তুমুল জনপ্রিয়তা সম্পর্কেও শোনা গেছে। মুক্তির আগেই ছবিটি দর্শকদের কাছে এতোটা জনপ্রিয়তা পেয়েছে যে, ভারতে এর আগে কোনো ছবি নিয়ে, অন্তত মুক্তির আগে এতোটা কৌতুহল তৈরি হয়নি। মুক্তির আগেই ছবিটির নির্মাণ, বাজেট, প্রচারণার আদ্যোপান্তে ছিল ইতিহাস ছোঁয়ার হাতছানি। সেইদিকটি মাথায় রেখেই প্রমোশনের কাজটিও করে গেছেন ‘বাহুবলী’ কর্তৃপক্ষ। টিজার, ট্রেলার, পোস্টারেও ছিল ভিন্নতা। তাছাড়া দর্শকের জন্য সবচেয়ে বড় আগ্রহের জায়গা ছিল ছবির বিশাল বাজেট। ছবিটির প্রচারণার জন্য ‘বাজেট’ বিষয়টি সবচেয় প্রাধান্য পেয়েছে। প্রচারণায় যখন বলা হয়, ভারতের ইতিহাসে সবচেয়ে ব্যয়বহুল সিনেমা ‘বাহুবলী’; তখন স্বাভাবিকভাবেই দর্শকের কৌতুহল তৈরি হয়। আর এই কৌতুহলকে কাজে লাগিয়েই এগিয়ে গেছে ‘বাহুবলী’। ফলে ১০ জুলাই মুক্তির পর ছবিটি দেখতে দেখা গেছে দর্শকদের তুমুল কৌতুহল। অগ্রীম টিকেটের জন্য হুড়ুহুড়ি, টিকেটে পেতে কয়েক কিলোমিটার দীর্ঘ লাইন, ৫০০ টাকার টিকেট ১০,০০০ টাকা দিয়ে পর্যন্ত কিনছে দর্শক, এমন কথাও শোনা গেছে ভারতীয় গণমাধ্যমে।

ছবির কাহিনী প্রসঙ্গে জানা গেছে, মহিষ্মতী রাজ্য থেকে বিতাড়িত এক ছোট্ট রাজপুত্রেরর গল্প ‘বাহুবলী’। যেখানে বাল্যকালে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে ওই রাজ্য থেকে তাকে বের করে দেয় ভল্লালা দেব নামের এক স্বৈরাচারি রাজা। তারপর দূরবর্তী এক আদিবাসী গ্রামের মানুষজন তাকে লালন পালন করে বড় করে তুলে। তার বীরত্ব আর অসুর শক্তির জন্য শিবা নামের বিতাড়িত ছোট্ট ছেলেটি ‘বাহুবলী’ নামে পরিচিতি পায়। তার শক্তির কথা দিকেদিকে ছড়িয়ে যেতে থাকে। তারপর একদিন নিজ রাজ্য পুনরুদ্ধার করতে বেড়িয়ে পড়েন ‘বাহুবলী’। নানা সংঘাত, প্রেম, ট্র্যাএজেডি আর নাটকীয়তার মধ্য দিয়ে তিনি পৌঁছেন তার হারানো রাজ্যে।
চলতি মাসের ১০ জুলাই শুক্রবার ভারতের অন্তত চার হাজার সিনেমা হলে একযুগে মুক্তি পেয়েছে বাহুবলী। দক্ষিণ ভারতেই ছবিটি অন্তত দু’হাজার হলে মুক্তি পেয়েছে। মুক্তির আগেই ‘বাহুবলি’র জয়জয়কার দেখে সিনেমা ক্রিটিকরা বলেছিলেন যে ভারতের ইতিহাসে অন্যতম রেকর্ড সৃষ্টি করা ছবি হতে যাচ্ছে এটি। মুক্তির পর তা সত্যি সত্যিই ফলে গেল। ভারতের বিভিন্ন সোর্স থেকে জানা গেছে, মুক্তির মাত্র তিন দিনেই ‘বাহুবলী’ ভারতের ইতিহাসে সবচেয়ে দ্রুত সময়ে ১০০ কোটি রূপি আয় করে। যা এর আগে কোনো ছবি করতে পারেনি।

তামিল, তেলেগু ভাষায় ছবিটি নির্মাণ হলেও পরবর্তীতে হিন্দি এবং মালায়লাম ভাষায় ছবিটি ডাবিং করে রিলিজ দেয়া হয়। এর মধ্যে তেলেগু ভাষায় ছবিটি সবচেয়ে বেশী আয় করেছে। যা তেলেগু ছবির ইতিহাসেও খুবই বিরল!

নানা দিক দিয়েই ‘চমক’ সৃষ্টি করে চলেছে ‘বাহুবলী’। আর ‘চমক’ সৃষ্টি করবেই বা না কেন! কারণ ‘বাহুবলি- দ্য বিগিনিং’ ছবিটিতে খরচ হয়েছে প্রায় আড়াইশো কোটি রুপি! যা এখন পর্যন্ত বলিউডে রেকর্ড। ‘বাহুবলি- দ্য বিগিনিং’ ছবিটি তামিল হলেও হিন্দি সংস্করণের জন্য প্রযোজনা করছে করন যোহরের ধর্ম প্রোডাকশন, তাই ‘বাহুবলি’কে আর আঞ্চলিক ছবি বলা যাচ্ছে না। তবে যে যায় বলুক, ছবিটি যে মস্ত রেকর্ডের পথে যাচ্ছে এ বিষয়ে কোনো সন্দেহই নেই!
বাহুবলী দ্য বিগিনিং:

পরিচালক: এস এস রাজামউলে
চিত্রনাট্য: বিজয়ান্দ্র প্রসাদ, এস এস রাজামউলে
তেলেগু সংলাপ: সি এইচ বিজয় কুমার, অজয় কুমার
তামিল সংলাপ: মদন কর্কি
হিন্দি সংলাপ: মনোজ মুন্তাসির
প্রযোজক: প্রসাদ দেবিনানি, সবু
অভিনেতা-অভিনেত্রী: প্রভাস, রানা দাগ্গাবতি, আনুশকা শেঠি, তামান্না ভাটিয়া, রাম্য কৃষ্ণ, নাসের প্রমুখ।
মিউজিক: এম এম কিরাবানি
চিত্রগ্রাহক: সেনথিল কুমার

সর্বশেষ
জনপ্রিয় খবর

Uttara Times

Like us on Facebook!
Sign up for our Newsletter

Enter your email and stay on top of things,

Subscribe!