শিরোনাম
নব নির্বাচিত এমপি আলহাজ্ব হাবীব হাসানের কাছে ঢাকা ১৮ আসনের জনগনের প্রত্যাশা ই-পাসপোর্ট যুগে প্রবেশ ৩টি রকেট আঘাত হানলো বাগদাদের মার্কিন দূতাবাদের কাছে সিপিবি’র সমাবেশে বোমা হামলা মামলায় ১০ আসামির মৃত্যুদণ্ড চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলা: খালেদার জামিন খারিজের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত শাবানা আজমি: ‘কর্মফল’ হিসেবে দেখছেন বিজেপি সমর্থকরা সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নানের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক বিপিএল-এ এবারের চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী কেন্দ্রীয় সরকারের ডাকা জরুরি বৈঠকে যাবে না তৃণমূল কংগ্রেস নতুন কমিশন অনুযায়ী সাপ্তাহিক মজুরি পেতে শুরু করেছে পাটকল শ্রমিকরা

উত্তরা-মতিঝিল মেট্রোরেল নির্মাণব্যয় বাড়ছে ২০%

উত্তরা টাইমস
সম্পাদনাঃ ০৫ মার্চ ২০১৯ - ০৯:৩২:১৮ এএম

রাজধানীর যানজট হ্রাসে উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রোরেল নির্মাণ করা হচ্ছে। প্রকল্পটি আটটি প্যাকেজে ভাগ করে ঠিকাদার নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে পাঁচ প্যাকেজের চুক্তিমূল্য প্রকল্পের প্রাক্কলিত ব্যয়ের চেয়ে অনেক বেশি। এতে মেট্রোরেল নির্মাণব্যয় বেড়ে যাচ্ছে প্রায় ২০ শতাংশ।
মেট্রোরেলের অগ্রগতি প্রতিবেদন পর্যালোচনায় এ তথ্য উঠে এসেছে। এতে দেখা যায়, আট প্যাকেজের মধ্যে শুধু একটিতে প্রাক্কলিত ব্যয়ের চেয়ে কম মূল্যে ঠিকাদার নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। আর দুই প্যাকেজের চুক্তিমূল্য প্রাক্কলিত ব্যয়ের সমান। তবে প্রকল্পটির নির্মাণ শেষে চূড়ান্ত ব্যয় আরও বাড়বে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।
তথ্যমতে, উত্তরা-মতিঝিল মেট্রোরেল প্রকল্পের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ব্যয় বাড়ছে ৭নং প্যাকেজে। এর আওতায় মেট্রোরেলের স্টেশনগুলোয় ওঠানামার জন্য চলন্ত সিঁড়ি ও লিফট, প্রায় ২০ কিলোমিটার রেলওয়ে ট্র্যাক, স্বয়ংক্রিয় ভাড়া আদায় ব্যবস্থাপনা, বৈদ্যুতিক সাবস্টেশন ও ট্রেনে বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা, টেলিকমিউনেশন সিস্টেম, প্ল্যাটফর্ম স্ক্রিন ডোর ইত্যাদি স্থাপন করা হবে। এর কাজ করছে জাপানের মারুবিনি করপোরেশন ও ভারতের এলঅ্যান্ডটি (লারসন অ্যান্ড তুবরো)।
৭নং প্যাকেজ বাস্তবায়নে ব্যয় হবে চার হাজার ৯৩০ কোটি ১৩ লাখ টাকা, যদিও প্যাকেজটির প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছিল তিন হাজার ৭৪ কোটি ২১ লাখ টাকা। এ হিসেবে ৭নং প্যাকেজের ব্যয় বাড়ছে এক হাজার ৮৫৫ কোটি ৯২ লাখ টাকা, বা ৬০ দশমিক ৩৭ শতাংশ।
এদিকে ৮নং প্যাকেজের আওতায় মেট্রোরেলের জন্য রোলিং স্টক (ইঞ্জিন-কোচ) ও ডিপো ইকুইপমেন্ট সরবরাহ করবে জাপানের কাওয়াসাকি-মিতসুবিনিশি কনসোর্টিয়াম। এর মধ্যে ২৪ সেট ট্রেন ও ডিপো ইকুইপমেন্ট সরবরাহ করবে। এছাড়া ট্রেন সিমুলেটর, খুচরা যন্ত্রাংশ ও সংশ্লিষ্টদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে প্রশিক্ষণ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। এজন্য ব্যয় প্রাক্কলন করা হয়েছিল দুই হাজার ৮৭০ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। আর ঠিকাদারের সঙ্গে চুক্তিমূল্য চার হাজার ২৫৭ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। এতে ৮নং প্যাকেজের ব্যয় বাড়ছে প্রায় এক হাজার ৩৮৭ কোটি টাকা, বা ৪৮ দশমিক ৩২ শতাংশ।
মেট্রোরেলের ৬নং প্যাকেজের নির্মাণব্যয়ও বাড়ছে। এ প্যাকেজের আওতায় কারওয়ান বাজার থেকে মতিঝিল পর্যন্ত প্রায় চার দশমিক ৯০ কিলোমিটার উড়ালপথ (ভায়াডাক্ট) নির্মাণ করা হবে। এছাড়া শাহবাগ, টিএসসি, প্রেস ক্লাব ও মতিঝিলে চারটি মেট্রো স্টেশনও নির্মাণ করা হবে। এ অংশের কাজ যৌথভাবে করছে জাপানের সুমিতোমা মিতসুই কনস্ট্রাকশন কোম্পানি ও থাইল্যান্ডভিত্তিক ইটাল-থাই ডেভেলপমেন্ট কোম্পানি।
৬নং প্যাকেজটি বাস্তবায়নে ব্যয় ধরা হয়েছিল এক হাজার ৯৮৮ কোটি ৯৮ লাখ টাকা। তবে গত বছর ঠিকাদার নিয়োগে চুক্তিমূল্য ছিল দুই হাজার ৩৩২ কোটি তিন লাখ টাকা। এ হিসেবে ৬নং প্যাকেজে ব্যয় বাড়ছে ৩৪৩ কোটি পাঁচ লাখ টাকা, বা প্রায় ১৭ দশমিক ২৫ শতাংশ।
এদিকে মেট্রোরেলের ৫নং প্যাকেজের নির্মাণব্যয় প্রাক্কলিত ব্যয়ের চেয়ে কমেছে। এ প্যাকেজের আওতায় আগারগাঁও থেকে কারওয়ান বাজার পর্যন্ত প্রায় তিন দশমিক ২০ কিলোমিটার উড়ালপথ (ভায়াডাক্ট) এবং বিজয়সরণি, ফার্মগেট ও কারওয়ান বাজার এলাকায় তিনটি স্টেশন নির্মাণ করা হবে। এ অংশের কাজ যৌথভাবে করছে জাপানের অ্যাবে নিক্কো ও বাংলাদেশের আবদুল মোনেম লিমিটেড।
৫নং প্যাকেজটি বাস্তবায়নে ব্যয় ধরা হয়েছিল দুই হাজার ৫৪৯ কোটি ১১ লাখ টাকা। তবে ঠিকাদারের সঙ্গে চুক্তিমূল্য ছিল এক হাজার ৮৫৪ কোটি ৯৭ লাখ টাকা। ফলে এ অংশের ব্যয় কমছে ৬৯৪ কোটি ১৪ লাখ টাকা বা প্রায় ২৭ দশমিক ২৩ শতাংশ।
প্রকল্পটির ৩ ও ৪নং প্যাকেজের মধ্যে উত্তরার দিয়াবাড়ী থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত ১২ কিলোমিটার ভায়াডাক্ট ও ৯টি স্টেশন নির্মাণ করা হচ্ছে। এ প্যাকেজের চুক্তিমূল্য ও প্রাক্কলিত ব্যয় চার হাজার ২৩০ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। ফলে ওই দুই অংশের ব্যয় বাড়ছে না। এ দুই প্যাকেজ বাস্তবায়ন করছে ইটাল-থাই ডেভেলপমেন্ট কোম্পানি।
এদিকে উত্তরায় মেট্রোরেলের ডিপোর মাটি উন্নয়ন ও ডিপো নির্মাণ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে ১ ও ২নং। এ দুই প্যাকেজের প্রাক্কলিত ব্যয় ছিল এক হাজার ৪০৬ কোটি ৭৮ লাখ টাকা। তবে প্যাকেজগুলোর চুক্তিমূল্য ছিল দুই হাজার ১৬৩ কোটি টাকা। ফলে ওই দুই প্যাকেজের ব্যয় বাড়ছে ৭৫৬ কোটি ২২ লাখ টাকা বা ৫৩ দশমিক ৭৬ শতাংশ।
সব মিলিয়ে আট প্যাকেজ বাস্তবায়নে ব্যয় হচ্ছে ২০ হাজার ৮৮৯ কোটি ১৪ লাখ টাকা, যদিও প্রকল্পের আওতায় এজন্য প্রাক্কলিত ব্যয় ছিল ১৭ হাজার ৪৮৫ কোটি ১৪ লাখ টাকা। অর্থাৎ মেট্রোরেলের নির্মাণ খাতে ব্যয় বাড়ছে তিন হাজার ৪০৪ কোটি টাকা বা ১৯ দশমিক ৪৭ শতাংশ।
উল্লেখ্য, আট প্যাকেজের বাইরে ভূমি অধিগ্রহণ, ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন, পরিষেবা সংযোগ লাইন স্থানান্তর, পরামর্শক ব্যয় এবং ভৌত ও আর্থিক ব্যয় সমন্বয় মিলিয়ে উত্তরা-মেট্রোরেল বাস্তবায়নে ব্যয় ধরা হয়েছিল ২১ হাজার ৯৮৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে ১৬ হাজার ৫৯৫ কোটি টাকা জাপান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থার (জাইকা) দেওয়ার কথা। বাকি পাঁচ হাজার ৩৯০ কোটি টাকা সরকারের তহবিল থেকে সরবরাহ করার কথা রয়েছে। তবে ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় এক্ষেত্রে জাইকা ও সরকারি তহবিল দুটোই বাড়বে।
তথ্যমতে, মেট্রোরেলের রুট ধরা হয়েছে উত্তরা তৃতীয় পর্ব-পল্লবী-রোকেয়া সরণির পশ্চিম পাশ দিয়ে খামারবাড়ী হয়ে ফার্মগেট-হোটেল সোনারগাঁও-শাহবাগ-টিএসসি-দোয়েল চত্বর-তোপখানা রোড-বাংলাদেশ ব্যাংক। এ রুটে স্টেশনসংখ্যা থাকছে ১৬টি। এগুলো হলো উত্তরা উত্তর, উত্তরা সেন্টার, উত্তরা দক্ষিণ, পল্লবী, মিরপুর-১১, মিরপুর-১০, কাজীপাড়া, শেওড়াপাড়া, আগারগাঁও, বিজয় সরণি, ফার্মগেট, কারওয়ান বাজার, শাহবাগ, টিএসসি, প্রেস ক্লাব ও মতিঝিল।
প্রকল্পের মেয়াদ ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত ধরা হলেও বিশেষ উদ্যোগে ২০১৯ সালে উত্তরা তৃতীয় পর্ব থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত এবং ২০২০ সালে মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রোরেল চালু করা হবে। মেট্রোরেল চালু হলে উত্তরা থেকে মতিঝিল আসতে সময় লাগবে ৩৮ মিনিট। প্রতি ঘণ্টায় উভয় দিক থেকে যাত্রী পরিবহন করা যাবে ৬০ হাজার। দুটি ট্রেনের মধ্যে সময়ের ব্যবধান হবে পাঁচ মিনিট।

সর্বশেষ
জনপ্রিয় খবর

Uttara Times

Like us on Facebook!
Sign up for our Newsletter

Enter your email and stay on top of things,

Subscribe!