শিরোনাম
নব নির্বাচিত এমপি আলহাজ্ব হাবীব হাসানের কাছে ঢাকা ১৮ আসনের জনগনের প্রত্যাশা ই-পাসপোর্ট যুগে প্রবেশ ৩টি রকেট আঘাত হানলো বাগদাদের মার্কিন দূতাবাদের কাছে সিপিবি’র সমাবেশে বোমা হামলা মামলায় ১০ আসামির মৃত্যুদণ্ড চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলা: খালেদার জামিন খারিজের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত শাবানা আজমি: ‘কর্মফল’ হিসেবে দেখছেন বিজেপি সমর্থকরা সংসদ সদস্য আব্দুল মান্নানের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক বিপিএল-এ এবারের চ্যাম্পিয়ন রাজশাহী কেন্দ্রীয় সরকারের ডাকা জরুরি বৈঠকে যাবে না তৃণমূল কংগ্রেস নতুন কমিশন অনুযায়ী সাপ্তাহিক মজুরি পেতে শুরু করেছে পাটকল শ্রমিকরা

মেসি এবার সেরা পুরস্কারের যোগ্য ছিলেন?

উত্তরা টাইমস
সম্পাদনাঃ ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯ - ০৩:৩১:১৬ পিএম

বহু অপেক্ষা শেষে জীবনে প্রথমবারের জন্য ফিফার পুরুষ ক্যাটাগরিতে বর্ষসেরার পুরস্কার পেলেন লিওনেল মেসি। প্রতিদ্বন্দ্বী ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ও ভার্জিল ফন ডাইককে হারিয়ে এই খেতাব জয় মেসির। সোমবার রাতে মিলানের আইকনিক লা স্কালা অপেরা হাউসে আয়োজিত হয়েছিল জমকালো পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান। তবে সেখানে উপস্থিত ছিলেন না ইতালিতেই থাকা রোনালদো।

পুরস্কারের দৌড়ে ভালোভাবেই ছিলেন লিভারপুলের তারকা ডিফেন্ডার ভার্জিল ফন ডাইক এবং জুভেন্টাসের ফরোয়ার্ড রোনালদোও।

এদিন পুরস্কার হাতে নিয়ে মেসি বলেছেন, ‘আমি সেইসব মানুষকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাতে চাই যারা এই পুরস্কারের জন্যে আমাকে যোগ্য বলে মনে করেছেন। আজকের রাতটা আমার কাছে খুব স্পেশাল।’

ব্যালন ডি’অব থেকে আলাদা হয়ে ২০১৬ সাল হতে ফিফা এই পুরস্কার দেয়া শুরু করে। প্রথম এবং দ্বিতীয় বছর জিতে নেন রোনালদো। ২০১৮ সালে তার থেকে এই পুরস্কার ছিনিয়ে নেন ক্রোয়েশিয়ার তারকা ফুটবলার লুকা মদ্রিচ।

প্রতি বছরই দ্য বেস্ট অ্যাওয়ার্ড দেয়ার পর কিছু না কিছু বিতর্ক হয়। এবারও তার ব্যতিক্রম নয়। মেসির নাম ঘোষণা হওয়ার পর চারদিকে একটা প্রশ্ন ঘুরছে। এবার আর্জেন্টাইন মহাতারকার জন্য এটা প্রাপ্য বিজয় ছিল?

মেসির সেরা হওয়ার বিপক্ষে সবচেয়ে জোরাল আওয়াজ দিয়েছেন মাদ্রিদভিত্তিক স্প্যানিশ ক্রীড়া দৈনিক মার্কার দুইজন সাংবাদিক।

গত মৌসুমে লা লিগা, কোপা ডেল রে এবং চ্যাম্পিয়ন্স লিগ মিলিয়ে ৪৯ ম্যাচে ৫১ গোল করেন মেসি। এর সঙ্গে আছে ২১টি অ্যাসিস্ট।

মেসি কেবল গোল্ডেন শু বিজয়ীই ছিলেন না, গত মৌসুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শীর্ষস্থানীয় স্কোরারও ছিলেন। লা লিগাতেও সর্বোচ্চ গোল, সেজন্য পিচিচি জিতেছিলেন।

দলীয় শিরোপা অর্জন সম্মিলিত সাফল্যের উপর নির্ভর করে এবং ফিফা বেস্ট ও ব্যালন ডি’অরের মতো পুরস্কারগুলো ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সের জন্য দেয়া হয়।

ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সের বিচারে অন্যকারও সাথে এটা ভালো না গেলেও মেসি নিঃসন্দেহে এই অর্থে সেরা ছিলেন। মেসির জন্য গত বছরটা আরেকটি মেসিময় বছর ছিল। তিনি বার্সেলোনার এবং লা লিগার সেরা খেলোয়াড় ছিলেন, এতে কোনো সন্দেহ নেই।

কিন্তু মার্কার দুই সাংবাদিক বলছেন, ‘আমরা যতদূর জানি, ফুটবল কোনো ব্যক্তিগত খেলা নয় এবং এটাও মনে করি যে, অ্যানফিল্ড পরাজয় (চ্যাম্পিয়ন্স লিগে লিভারপুলের কাছে বার্সার হার), কোপা ডেল রের ফাইনালে হার এবং কোপা আমেরিকার বিষয়টি এই সিদ্ধান্তের অংশ হওয়া উচিত ছিল।’

তাদের আরও মন্তব্য, এই তিনটি গুরুত্বপূর্ণ টুর্নামেন্টের ফলাফলের হিসাব আসলে অন্য যেকোনো খেলোয়াড়কে ‘সেরার’ দৌড় থেকে সম্পূর্ণভাবে ছিটকে দিত। মেসি অন্য যেকারও চেয়ে বার্সেলোনাকে এগিয়ে নেন। তবে তার দল কোথায় পৌঁছেছে সেটাও দেখা দরকার।

অন্যদিকে, ভার্জিল ফন ডাইক ছিলেন লিভারপুলের এবং ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের সেরা খেলোয়াড়। তিনি চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে নিজের দলকে জয়ের দিকে নিয়ে যেতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। মার্কার সাংবাদিকরা বলছেন, তারা আন্তরিকভাবে বিশ্বাস করেন যে, ট্রফিটা ডাচ তারকার হাতে উঠলেই এটার ভারসাম্য রক্ষা হতো।

সর্বশেষ
জনপ্রিয় খবর

Uttara Times

Like us on Facebook!
Sign up for our Newsletter

Enter your email and stay on top of things,

Subscribe!